Amardesh
আজঃ
 
 সাপ্তাহিকী
 
আবহাওয়া
 
 
আর্কাইভ: --
 

ফেনীতে মাদক ব্যবসার আধিপত্য বিস্তারে আহত ছাত্রলীগ নেতার মৃত্যু

ছাগলনাইয়া (ফেনী) প্রতিনিধি
« আগের সংবাদ
পরের সংবাদ»
ফেনীতে মাদক ব্যবসার আধিপত্য বিস্তারে আহত ছাত্রলীগ নেতা হায়দার মারা গেছেন। রোববার দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধিন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। শনিবার সকালে স্থানীয় মাদক ব্যবসায়ীদের বিবদমান দু’গ্রুপের সংঘর্ষে হায়দার আলী সহ ৫ জন আহত হয়। হায়দার ফেনী পৌরসভার ৬ নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি। মামলার এজাহার ও স্থানীয়রা জানায়, দীর্ঘ দিন থেকে পৌরসভার সুলতানপুর ও সৈয়দনগরে মাদক ব্যবসার আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দটি গ্রুপের মধ্যে দ্ব›দ্ব চলছিল। বৃহষ্পতিবার সৈয়দগরের রনি ও কবির সহ ৪/৫ জন সুলতানপুরের মেথর কোয়ার্টারে মাদক ক্রয় করতে গেলে আগের পাওনা পরিশোধ নিয়ে দু‘গ্রুপের মধ্যে বাকবিতন্ডা শুরু হয়। এক পর্যায়ে রনি ও কবিরকে চড় থাপ্পড় দেয় মাদক বিক্রেতা যুবলীগ কর্মী আনোয়ার গ্রুপের লোকজন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে শনিবার দুপুরের দিকে ফারুক, হায়দার, শাহজাহান, কবির ও নুর উদ্দিন সহ ৮/১০ জন মেথড় কোয়ার্টারের আনোয়ারের বাড়ি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে দেশীয় অস্ত্র-সস্ত্র নিয়ে হামলা চালায়। এ খবর চতুর্দিকে ছড়িয়ে পড়লে আনোয়ার, রাজু, একরাম ও হান্নানসহ অন্যান্যরা সংগঠিত হয়ে উল্টো হামলা চালাতে থাকে। হামলায় ফারুক, হায়দার শাহজাহানসহ বেশ কয়েকজন মারাত্মক আহত হয়। পরে আহতদেরকে ফেনী সদর হাসপাতালে আনা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক ফারুক ও হায়দারকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে। এ ঘটনায় রনির ভাই রবিউল হক বাদী হয়ে মাহবুবুল হকের ছেলে যুবলীগ কর্মী আনোয়ার, আইয়ুবের ছেলে রাজু, স্বপনের ছেলে একরাম, ইব্রাহীমের ছেলে হান্নান, রুহুল আমিনের ছেলে শামীম, আবদুল হকের ছেলে দুলাল ও শেখ আহাম্মদের ছেলে বাবলুর নাম উল্লেখ কওে ১০/১২জনের নামে ফেনী মডেল থানায় মামলা দায়ের করেছেন। ফেনী মডেল থানার সেকেন্ড অফিসার জিয়াউল হক খোন্দকার জানান, ঘটনার সাথে জড়িতদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।